আজ- শনিবার, ৮ই মে, ২০২১ ইং, ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Email *

শিরোনাম

  Empathy, Patriotism & Commitment Group: একটু বিশ্লেষণ       বৃক্ষ রোপণের ৭ তারকা ও ১ শিল্পী       ‘পরিবর্তন চাই’ এর চার বছর       নামে কী বা আসে যায়       লৌহজং ‘সামাজিক আন্দোলন’ – আমার সুখ স্মৃতি       `একাত্তরের জননী’র সন্তানেরা       মনোয়ারাঃ সক্ষম সন্তানদের মরতে বসা মা       নদী-খাল উদ্ধারে সফল, সফলতার পথে এবং সম্ভাব্য অভিযান       মাছের পেটের রড থেকে গরাদঘরে       পাবনায় নৌ-র‌্যালিঃ নদী উদ্ধারে নতুন উদ্ভাবন       আক্রান্ত সিটিজেন জার্নালিজম       দক্ষিণাঞ্চলে দুই সপ্তাহব্যাপী নিম্নচাপঃ উদ্ভাবন ও সিটিজেন জার্নালিজম বিব্রত       আইনজীবীর হৃৎকম্পে কাঁপছে দেশ       পাবলিক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রতিচ্ছবি       জনশক্তিতে উদ্ভাবন       ফেইসবুক, বাংলাদেশ সরকার এবং রাজার ঘণ্টা       অধ্যক্ষ অনিমেষ ও সোশাল মিডিয়া       জনবান্ধব স্বাস্থ্যসেবায় সোশ্যাল মিডিয়া ও প্রথা ভাঙ্গার গল্প       শিয়ালের কামড় থেকে সোশাল মিডিয়ার কামড়       সোশাল মিডিয়া ইনোভেশন এ্যাওয়ার্ডের ১ বছর ১ মাস    

সর্বব্যাপী সেবার সহযাত্রী

14805605_1746990555517600_1239171907_n
এটুআইতে এটুমাই এর যাত্রা শুরু হলো আজ ২৫ অক্টোবর, ২০১৬ মঙ্গলবার, সকাল ৮টা ৫৮ মিনিটে।
এটুআই অর্কেস্ট্রা টিমের, এই দক্ষযজ্ঞসম যাত্রা পালার হয়তো সবচেয়ে বড় দেহধারী, সবচেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ, সর্বাধিক নবীন (এটুআইতে বয়স বিচারে) মেম্বার আমি। তবু মেম্বার তো!

অনেক সাফল্য আছে এটুআইয়ের। সাড়ে চার হাজার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রতি মাসে ৪৫ লক্ষ মানুষকে প্রায় ১০০ রকম সেবা দেয়া হচ্ছে যার মাধ্যমে গত ৬ বছরে সুবিধাবঞ্চিত মানুষের প্রায় সাড়ে ৪০০০ কোটি টাকা সাশ্রয় আর ২০০ কোটি টাকা আয় হয়েছে। প্রদান করা হয়েছে ২৪ কোটির মতো সেবা। ১৩৭ বছরে অর্জিত ১০% জন্ম নিবন্ধন গত ৬ বছরে ৯০% এ উন্নীত হয়েছে (প্রায় ১৫ কোটি নিবন্ধন)। প্রায় ৪৩০০০ সরকারী অফিসের তথ্য ও ২৫০০০ এরকারী ওয়েবসাইট সম্বলিত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ওয়েব পোর্টাল www.bangladesh.gov.bd তৈরী হয়েছে যেখানে দেশের সকল সরকারী অফিস সংযুক্ত। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের লক্ষাধিক শিক্ষকের অবদানে গড়ে ওঠা www.shikkhok.com শিক্ষক প্রশিক্ষণে অভিনব মাত্রা যোগ করেছে। প্রায় ২৪ হাজার মাধ্যমিক ও ৬০০০ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থাপিত হয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম। http://www.forms.gov.bd/ এ এক জায়গায় পাওয়া যাচ্ছে ১৫৮টি সরকারী অফিসের ১৫৩৬টি সেবার ফরম। ৪০০ এর অধিক সেবার তথ্য সম্বলিত সেবাকুঞ্জ। এসআইএফ ফান্ডের মাধ্যমে লালিত হয়েছে ১০৩ টি উদ্ভাবন। আরও ৬০০ উদ্ভাবন পাইলটিং পর্যায়ে আছে। www.ebook.gov.bd ঠিকানায় আছে টেক্সটবুক বোর্ডের সব বইয়ের ডিজিটাল ভার্সন এবং দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ব্রেইল ভার্সন। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়ায় এবং পিএসসি, জেএসসি, এসএসসি, এইচএসসি প্রভৃতি পরীক্ষার ফল প্রকাশে তো ঘটে গেছে বিস্ময়কর বিপ্লব। এসএসএসর মাধ্যমে প্রেরিত হয়েছে প্রায় ৪৭ লক্ষ ইক্ষু ক্রয়ের আদেশ (ই-পুর্জি)। ডাক বিভাগের মাধ্যমে ইস্যু হয়েছে ২ কোটি ৫৫ লক্ষ ইলেক্ট্রনিক মানি অর্ডার। ১৮ লক্ষ নাগরিকের ই-টিআইএন ছাড়াও বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য নিবন্ধিত হয়েছেন প্রায় ২০ লক্ষ প্রবাস গমনেচ্ছুক কর্মী। এটুআই প্রোগ্রাম আসলে সরকারের রূপকল্প ২০২১ এর কল্পনার রূপকে রূপায়িত করার হাতিয়ার। হাতিয়ারশালা বলা উচিৎ।আর এটুআই শুধু এটুআই নয়, এটুআই হলো জনপ্রশাসনে উদ্ভাবনের, উন্নয়ন উদ্ভাবনে জনপ্রশাসনের, রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নের তথা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের এটুজেড।

একজন কৃষি কর্মকর্তা ডিজিটাল জ্ঞানভান্ডার তৈরী করে ফসলের রোগের প্রতিকার বাতলে দিচ্ছেন। একজন মৎস্য কর্মকর্তা মৎস্য পরামর্শ এ্যাপ তৈরী করেছেন। তৈরী হয়েছে বালাইনাশক এ্যাপ। একজন জনশক্তি কর্মকর্তা ভিসা যাচাই করার এ্যাপ তৈরী করেছেন। একজন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা স্বাস্থ্য কার্ড চালু করে হতদরিদ্রদের স্বাস্থ্য সেবা দিচ্ছেন। মোবাইল এ্যাপ তৈরী হয়েছে আরো বেশ কিছু। জেলা প্রশাসকেরা ফেসবুক ব্যবহার করে জনগণের সমস্যা শুনছেন ও সমাধান করতে সচেষ্ট হচ্ছেন। সিটিজেন জার্নালিজম বিকশিত হচ্ছে। আয়োজিত হয়েছে ৯০টি ‘ইনোভেশন ইন পাবলিক সার্ভিস’, ৩০টি ‘ইনোভেশন প্রজেক্ট ডিজাইন’ ১২ টি মেন্টরিং ওয়ার্কশপ। ২৯ টি ইনোভেশন সার্কেল, ১২টি থিমেটিক ইনোভেশন ফোরাম, ৪৭টি সোশাল মিডিয়া সংলাপ, ২১৩টি ক্যাসকেডিং কর্মশালা সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আর এই সব কিছু তুলে ধরার জন্য রয়েছে ইনোভেশন নিউজলেটার ‘সৃষ্টি সুখের উল্লাসে’ http://innovationnewsletter.a2i.pmo.gov.bd/ ঠিকানায়।

20161005_132406
অর্জনের এইসব গাণিতিক হিসাবের চেয়েও আমার দৃষ্টিতে এটুআই এর অনন্য অর্জন হলো জং ধরা জনপ্রশাসনে উদ্ভাবন সংস্কৃতি সৃষ্টি করা। জনপ্রশাসন সব দেশেই শৃংখলা রক্ষা আর নিয়ম-নীতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। আর উদ্ভাবনের শুরুটাই হয় নিয়মের বাইরে এসে। এই দুটি পরস্পর বিরোধী শব্দকে হাতে কলম থাকলেই এক বাক্যে জুড়ে দেয়া সম্ভব কিন্তু এই দুটি কাজকে একসাথে জুড়ে দেয়া শিখিয়ে ফল বের করে আনা ভাটার ভিতর থেকে আইসক্রিম বের করে আনার চেয়ে সহজ নয়। সরকারী চাকুরী মানেই ছিল পন্ডিতি না করে ফাইল ঘেটে আগের মতো করে কাজ করে যাওয়া সেখানে এটুআই বলছে আউট অব দা বক্স সেবা গ্রহীতাদের টাইম-কস্ট-ভিজিট কিভাবে কমানো যায় ভাবুন। আর ‘আপনি কেন এসেছেন’ এর জায়গায় ‘আপনার জন্য কি করতে পারি’ সংস্কৃতির প্রচলন। জানি এখনও প্রারম্ভিক পর্যায়ে আছে কিন্তু কে না জানে শুরুটাই আসল। এই শুরুটুকুও তো এতোকাল হয়নি।

শুরুর সহযাত্রী হতে পেরে আমি সম্মানিত। চিন্তিতও। শরীরে ভারে যেমন জোরে হাঁটতে পারি না, মেধার ধারে তেমন কিছুই কাটতে না পারি যদি ভেবে।

Categories: কার্যক্রম