আজ- রবিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
Email *

শিরোনাম

  মনোয়ারাঃ সক্ষম সন্তানদের মরতে বসা মা       নদী-খাল উদ্ধারে সফল, সফলতার পথে এবং সম্ভাব্য অভিযান       মাছের পেটের রড থেকে গরাদঘরে       পাবনায় নৌ-র‌্যালিঃ নদী উদ্ধারে নতুন উদ্ভাবন       বন্যার্তদের জন্য দান নয় ঋণ শোধের আয়োজন       আক্রান্ত সিটিজেন জার্নালিজম       দক্ষিণাঞ্চলে দুই সপ্তাহব্যাপী নিম্নচাপঃ উদ্ভাবন ও সিটিজেন জার্নালিজম বিব্রত       আইনজীবীর হৃৎকম্পে কাঁপছে দেশ       পাবলিক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রতিচ্ছবি       জনশক্তিতে উদ্ভাবন       ফেইসবুক, বাংলাদেশ সরকার এবং রাজার ঘণ্টা       অধ্যক্ষ অনিমেষ ও সোশাল মিডিয়া       জনবান্ধব স্বাস্থ্যসেবায় সোশ্যাল মিডিয়া ও প্রথা ভাঙ্গার গল্প       শিয়ালের কামড় থেকে সোশাল মিডিয়ার কামড়       সোশাল মিডিয়া ইনোভেশন এ্যাওয়ার্ডের ১ বছর ১ মাস       দেশের প্রথম ‘স্টুডেন্ট কমিউনিটি পুলিশিং’ সম্মেলন       আদালতের ভ্রমণ বর্জন       আবহাওয়া অধিদফতরের এ্যাপে বজ্রপাতের পূর্বাভাস ও করণীয়       WSIS Prizes 2017 এ ভোট দেয়ার ৭ টি দাপ্তরিক নজির       RMP’র মাদক ও জঙ্গী বিরোধী উদ্ভাবন ও অন্যান্য    

আক্রান্ত সিটিজেন জার্নালিজম

ঝড়ে দুভাবে গাছ উপড়ে পড়ে। ঝড়ের ঝাপটায় ও উপড়ে পড়া গাছের ধাক্কায়। সম্প্রতি বরিশাল ও বরগুনায় সিটিজেন জার্নালিজম বৃক্ষটি পরোক্ষ ধাক্কায় আক্রান্ত।

সরকারী সব অফিসকে সোশাল মিডিয়া ব্যবহার করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে সিটিজেন জার্নালিজমকে বিকশিত করে জনবান্ধব জনপ্রশাসন গড়ে তোলার জন্য। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনগুলো সবচেয়ে বেশী এগিয়ে এসেছে। ফেসবুকের মাধ্যমে এই কাজটি প্রথম শুরু হয়েছিল কুষ্টিয়ায় তৎকালীন জেলা প্রশাসক জনাব Sayed Bealal Hossain মহোদয়ের পৃষ্ঠপোষকতায়। কিন্তু এখন পর্যন্ত সিটিজেন জার্নালিজমের সর্বোচ্চ বিকাশ ঘটেছে বরিশালে। বরিশালের Dipu Hafizur Rahman বছর দুয়েক আগে ‘barisal – problem & prospect বরিশাল – সমস্যা ও সম্ভাবনা’ নামে একটি ফেসবুক গ্রুপ খোলেন। বরিশালের তৎকালীন জেলা প্রশাসক জনাব Gazi Md Saifuzzaman গ্রুপটিকে সিটিজেন জার্নালিজমের বিকাশে স্বার্থকভাবে কাজে লাগিয়ে দেশে বিদেশে এক অনবদ্য নজীর স্থাপন করেন। মূলত এই গ্রুপটির জনপ্রিয়তাই বিভিন্ন জেলায় সিটিজেন জার্নালিজমের চর্চাকে জনপ্রিয় করে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তৎকালীন মূখ্য সচিব ও বর্তমানে এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক জনাব Abul Azad মহোদয়ের অনুপ্রেরণা মূখ্য ভূমিকা পালন করে বললে একটুও বাড়িয়ে বলা হবে না। বরিশালের পরপরই পাবনা, বরগুনা এবং টাঙ্গাইলের অবস্থান। কুষ্টিয়া ও টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসকদ্বয় পদোন্নতি পেয়ে স্বাভাবিকভাবে অন্যত্র চলে গেছেন। কিন্তু বরিশাল ও বরগুনার জেলা প্রশাসকদ্বয়ের আকস্মিক প্রস্থানে সিটিজেন জার্নালিস্টরা কেমন যেন থমকে গেছেন বলে মনে হচ্ছে।

আর সিটিজেন জার্নালিস্টরা যতো ভাল কাজই করুন না কেন কিছু মানুষের তো স্বার্থ ক্ষুন্ন হয়েছে। এর আক্রমণাত্মক বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে বরিশালে। সেখানে জেলা প্রশাসককে প্রত্যাহার করার সাথে সাথে পত্রিকায় রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে সিটিজেন জার্নালিস্টদের হুমকি দিয়ে। বরগুণাতেও হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে।

হয়তো সেজন্যই বরিশাল ও বরগুণার পাশাপাশি সারাদেশেই সিটিজেন জার্নালিজমের চর্চায় খানিকটা ভাটার ভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে । একজন ইউএনও এর বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির দুঃখজনক মামলা ও পরবর্তী বিভিন্ন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের সাথে সিটিজেন জার্নালিজমের কোনো সম্পর্ক নেই। কিন্তু সিটিজেন জার্নালিজমের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ মহল এই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে সিটিজেন জার্নালিজমকেই স্তব্ধ করে দিতে চাইছে। এই পরিস্থিতিতে প্রশাসনের উপরের পর্যায় থেকে একটি পোস্ট, বিবৃতি বা ভিডিও বার্তা সিটিজেন জার্নালিস্টদের মনোবল চাঙ্গা করতে বিশেষভাবে ভূমিকা রাখবে নিঃসন্দেহে।

Categories: সিটিজেন জার্নালিজম