আজ- সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Email *

শিরোনাম

  Empathy, Patriotism & Commitment Group: একটু বিশ্লেষণ       বৃক্ষ রোপণের ৭ তারকা ও ১ শিল্পী       ‘পরিবর্তন চাই’ এর চার বছর       নামে কী বা আসে যায়       লৌহজং ‘সামাজিক আন্দোলন’ – আমার সুখ স্মৃতি       `একাত্তরের জননী’র সন্তানেরা       মনোয়ারাঃ সক্ষম সন্তানদের মরতে বসা মা       নদী-খাল উদ্ধারে সফল, সফলতার পথে এবং সম্ভাব্য অভিযান       মাছের পেটের রড থেকে গরাদঘরে       পাবনায় নৌ-র‌্যালিঃ নদী উদ্ধারে নতুন উদ্ভাবন       আক্রান্ত সিটিজেন জার্নালিজম       দক্ষিণাঞ্চলে দুই সপ্তাহব্যাপী নিম্নচাপঃ উদ্ভাবন ও সিটিজেন জার্নালিজম বিব্রত       আইনজীবীর হৃৎকম্পে কাঁপছে দেশ       পাবলিক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রতিচ্ছবি       জনশক্তিতে উদ্ভাবন       ফেইসবুক, বাংলাদেশ সরকার এবং রাজার ঘণ্টা       অধ্যক্ষ অনিমেষ ও সোশাল মিডিয়া       জনবান্ধব স্বাস্থ্যসেবায় সোশ্যাল মিডিয়া ও প্রথা ভাঙ্গার গল্প       শিয়ালের কামড় থেকে সোশাল মিডিয়ার কামড়       সোশাল মিডিয়া ইনোভেশন এ্যাওয়ার্ডের ১ বছর ১ মাস    

উদ্ভাবন প্রদর্শনে ভুল করার দৃষ্টান্ত কি দরকার আছে?

এটা অভিযোগ নয়।আত্মোপলব্ধির জন্য লেখা। পাশাপাশি অন্যদেরও নিজেদের উপলব্ধির কাজে লাগতে পারে বলে এখানে লেখা। আর একটা উদ্দেশ্য আছে। অন্যদের মতামতের আলোয় নিজের ঘাটতি বুঝে নেয়া।
বিষয় হলো গত ২৭ জুন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর ইনোভেশন টিমের সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বগুড়া ডিইএমও এর ‘ভিসা যাচাই’ এ্যাপ এবং যশোহর টিটিসির ‘অনলাইনে ভর্তি ও ফলাফল প্রদান’ ইনোভেশন সামিটে প্রদর্শিত হবে। সভার এই কার্য্ বিবরণী পেলাম ৩০ জুন রাতে। এরপর ৯ দিনের ঈদের ছুটি। জেলা প্রশাসকের দপ্তরে গিয়ে ঠিক বুঝলাম না, কি করতে হবে বা কিছু করার সময় পার হয়ে গেছে কিনা। মনে হলো সরাসরি মন্ত্রণালয়েই যোগাযোগ করতে হবে। এসময় এটুআই এর ওয়েবসাইটে জানলাম (বেশী জানা ভাল না কথাটা বোধহয় ঠিক)২৬ জুন সচিব, ডিজি, বিভাগীয় কমিশনার, ডিসি, ইউএনও মিলিয়ে উচ্চপদস্থ প্রায় ২৯০ জন কর্মকর্তার ইনোভেশন টিমের বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা সংক্রান্ত ভিডিও কনফারেন্সে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মহোদয় আমার ‘ভিসা যাচাই’ এ্যাপের কথা উল্লেখ করেছেন।খুশী লাগলো ভেবে যে আমাদের মন্ত্রণালয় তো জানেই দেখি এ্যাপের কথা। নিশ্চয়ই সেখান থেকে নির্দেশনা আসবে।আর এটুআইও জানে আমার ‘ভিসা যাচাই’ এ্যাপ তৈরী হয়ে গেছে। ইনোভেশন সামিটে প্রদর্শনের জন্য তখন ব্যানার, পোস্টার আর এক্স স্ট্যান্ড ব্যানার বানিয়ে অস্ত্রসজ্জিত হয়ে হুকুম এলেই ঝাঁপিয়ে পড়ার অপেক্ষায় গাধার মতো দিন গুনছি(ভুল হলো, গাধা দিন গুণতে পারে না বোধহয়)।বিনা যুদ্ধে নাহি দেব সূচাগ্র মেদিনি অবস্থা।এদিকে সমগ্র মেদিনি গিয়ে বসে আছে বুঝতেই পারিনি। ২৪ জুলাই জনশক্তি ব্যুরোর ফোকাল পয়েন্ট ফোন করে এটুআই এর গুরুত্বপূর্ণ কারও ফোন নম্বর এসএমএস করেতে বললেন। এসএমএস করলাম। অপেক্ষা করে করে ২৫ জুলাই এটুআইতে ফোন করে জানলাম তাঁদের কাছে আমার নাম নেই, আমাকে মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করতে হবে। মনে হলো এটুআই এর বিচারে হয়তো আমার উদ্ভাবনটি নির্বাচিত হয়নি। সেটা হতেই পারে। পরের দিন ফোকাল পয়েন্টকে ফোন করে জানলাম আমার উদ্ভাবন প্রদর্শিত হবে না। প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্ভাবন হিসাবে বগুড়া ডিইএমও বা যশোহর টিটিসির নয় বিকেটিটিসির ‘ই-লার্নিং’ প্রদর্শিত হবে। আমার যোগাযোগ দূর্বলতার কারণে যদি ‘ভিসা যাচাই’ বাদ পড়ে থাকে তাহলে ‘ই-লার্নিং’ কিভাবে ঢুকলো সেটা এখনও মাথায় ঢুকছে না।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব মহোদয় ১৩ মার্চ ২০১৬ এক লেখায় বলেছিলেন উদ্ভাবন বাস্তবায়নে ভুল করার দৃষ্টান্ত দরকার। আর আমি উদ্ভাবন প্রদর্শনে ভুল করার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলাম।

Categories: ইভেন্ট